দুরারোগ্যে আক্রান্ত শিশু কন্যা নদী বাঁচতে চায়

আল মামুন,ফুলবাড়ী (দিনাজপুর) সংবাদ প্রতিনিধি:দিনাজপুরের ফুলবাড়ীতে দুরারোগ্য রোগে আক্রান্ত ৯ বছরের কন্যা শিশু নদী বাঁচতে চায়। নদীকে বাঁচাতে পিতা-মাতার সামান্য যা অর্থকড়ি ছিলো তা ব্যয় করেও মেয়েকে সুস্থ্য করতে না পারায় সমাজের বিত্ত্ববানদের কাছে সাহায্যের হাত বাড়িয়েছেন অসহায় মা আরেফা বানু। চিকিৎসকদের সাথে পরামর্শ করলে তারা জানান, নদীর অপারেশনে প্রায় ১০ লক্ষ টাকা প্রয়োজন। যা তার পরিবারের পক্ষ থেকে একেবারেই অসম্ভব।
দিনাজপুর ফুলবাড়ী পৌর এলাকার ৬নং ওয়ার্ডে হতদরিদ্র পিতার কুড়ের ঘরে দুরারোগ্যে আক্রান্ত শিশু কন্যাসহ মানবেতর জীবন যাপন করছেন স্বামী পরিত্যাক্তা আরেফা বানু। যানা যায়, প্রায় ১২ বছর আগে ফুবাবাড়ী উপজেলার মাদিলাহাট ইনায়েতপুরের জাকিরুল ইসলামের সাথে বিয়ে হয় আরেফা বানুর। বিয়ের আড়াই বছর পর তাদের কোল জুড়ে আসে দুই জমজ কন্যা নদী ও বন্যা। বন্যার শারীরিক অবস্থা ভালো থাকলেও দুরারোগ্য ব্যাধি নিয়ে জন্ম নেয় নদী। নদীর নাভিতে অতিরিক্ত একটি মাংসো পিন্ড বাড়তে থাকলে ডাক্তারের সরনাপন্ন হোন তার বাবা-মা। তাদের সর্বস্ব দিয়ে চিকিৎসা করিয়েও কোন ফল না হওয়ায় উন্নত চিকিৎসার জন্য ভারতে নিয়ে অপারেশন করার পরামর্শ দেন ডাক্তাররা। যা কোন ভাবেই সম্ভব না অসহায় মা আরেফা বানুর। এরই মধ্যে নদীর নিষ্ঠুর বাবা জাকিরুল ইসলাম বছর সাতেক আগে দ্বিতীয় বিয়ে করে ঢাকায় চলে যান। বর্তমানে তাদের আর খোঁজ খবর নিচ্ছে না তিনি। আরেফা বতর্মানে গরীব দিনমজুর বাবার সংসারে দুই জমজ শিশু কন্যা নিয়ে অনাহারে অর্ধাহারে দিনাতিপাত করছেন। দুরারোগ্যে আক্রান্ত শিশু কন্যা নদী শারীরিক ভাবে বেরে উঠার পাশাপাশি তার নাভির উপরের মাংস পিন্ডটিও সমান তালে বেড়ে উঠছে। এই মহুর্তে নদীকে বাঁচাতে ১০ লক্ষ টাকা প্রয়োজন যা তার অসহায় মায়ের সংগ্রহ করা অসম্ভব।
মা আরেফা বানু মেয়ে নদীকে বাঁচাতে সমাজের বিত্ত্ববানদের কাছে সাহায্যের হাত বাড়িয়েছেন। সমাজের বিত্ত্ববানরা সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিলে মৃত্যু পথযাত্রী অসহায় শিশু কন্যা নদী এই দুরারোগ্য রোগ থেকে মুক্তি পাবে। সাহায্যের জন্য নদীর মা আরেফা বানুর ব্যক্তিগত বিকাশ নং ০১৭৬৪৮০৮৯৩৭।

শেয়ার করুন